শান্তিকামনা মাত্র

সাধারণতঃ বাংলা নববর্ষ, বা পয়লা বৈশাখ, নিয়ে আমি অন্য অনেকের মত এত উৎফুল্লিত হয়ে উঠিনা। পেশা-সংক্রান্ত প্রাতিষ্ঠানিক কারণে ইংরেজী ক্যালেণ্ডার মতে জানুয়ারী থেকে ডিসেম্বরের বছরের হিসেবটাই আমার কাছে জরুরী। ছোটবেলায় পয়লা বৈশাখের অনুষ্ঠানের নাচগান, এবং বৈশাখ মানেই গ্রীষ্মাবকাশের সূচনার হাতছানি – এই দুই কারণে তাও যেটুকু পুলকিত হয়ে উঠতাম, এখন সেগুলো ধীরে ধীরে বিলীয়মান স্মৃতির মত। কিন্তু তাও, আমি জানি যে আমার আত্মীয়পরিজন বন্ধুবান্ধবের কাছে বাংলা নতুন বছরের এই প্রথম দিনটি বিশেষ তাৎপর্য রাখে, এবং সেইকারণেই প্রতিবছর এই দিনটা তে নিয়মমাফিক আমিও শুভেচ্ছা-প্রীতি বিনিময় করে থাকি।

এই বছর, ইংরেজী ২০১৩ এবং সদ্যাগত বাংলা ১৪২০, দিনটা সকালে আর পাঁচটা দিনের মতই ফুটেছিল। (অফ কোর্স, দিনের শেষে যখন লিখতে বসেছি, তখন দেশে – ভারতে – অলরেডি দোসরা বৈশাখ হয়ে গেছে, কিন্তু আমি আমাদের আজ সকালের কথাই বলছি।) মুখপুস্তিকার কল্যাণে চারপাশ থেকে প্রচণ্ড গতিতে শুভেচ্ছার আদানপ্রদান শুরু হয়ে গেছে। কাজের ফাঁকে ফাঁকে তাতে একটু একটু করে পালটা শুভেচ্ছা জানাব ভেবেও রেখেছি। হঠাৎ করে আজকেরই দিনে দুটো ঘটনা চোখে পড়ল/ঘটে গেল।

হাফিংটন পোস্ট-নামক সংবাদপত্র/ম্যাগাজিন-এর ওয়েবসাইটে চোখে পড়ে গেল জয়পুরের একটা ঘটনা; ভয়ঙ্কর পথদুর্ঘটনায় এক মহিলা এবং তাঁর শিশুকন্যা নিহত হয়েছে এবং এক ঘন্টার ওপর ধরে তার স্বামী এবং ছেলে রাস্তায় পড়ে লোকজনের কাছে সাহায্য চেয়েছে, কিন্তু কোন গাড়ি থামেনি, কোন পথচারী এগিয়ে আসেনি। অন্য ঘটনাটি যদিও দেশের নয়, কিন্তু আজ এদেশের ম্যাসাচুসেট্‌স্‌ রাজ্যের বোস্টন শহরে স্বনামধন্য ম্যারাথন দৌড়ের আয়োজন ছিল। শেষ লাইনের কাছাকাছি পরপর দুটো ভয়াবহ বিস্ফোরণ ঘটে, তাতে শতাধিক লোক আহত হয় এবং একটি আট বছরের ছেলে সমেত দু’জন মারা যায়।

আমার কাছে এই ঘটনাগুলো (এবং ভারতবর্ষ সমেত পুরো পৃথিবীতেই কিছুদিন ধরে ঘটতে থাকা ঘটনাসমূহ) একটা অশনিসংকেতের পরিচায়ক, যার নাম মনুষ্যত্বের সংকট। আজকের দিনটা তাই তিক্তমধুর। তবে এই লেখাটাকে আর ভারী করব না। শুধু, একটা নতুন বছর (অন্তত কারো কারো কাছে তো নিশ্চয়), নতুন সময় শুরু হচ্ছে – সামনের দিকে তাকিয়ে পথচলা আমাদের কর্তব্য, এই কথা মাথায় রেখে সব্বাইকে জানাই আন্তরিকভাবে শুভেচ্ছা, প্রীতি, ভালবাসা, এবং আগামীদিনগুলোর জন্য মঙ্গলকামনা।
সর্বেন সুখিনঃ সন্তু, সর্বে সন্তু নিরাময়াঃ, সর্বে ভদ্রাণি পশ্যন্তু, মা কশ্চিত দুঃখভাগ্যমাপ্নুয়াৎ।

বাঙালী তো আফটার অল, তাই রবিদাদুর হাত ধরে ছাড়া কোথাও চলাটা মুশকিল। আজকের দিনে একটা গানের কয়েকটা লাইন আরো বেশি প্রাসঙ্গিক।
কলুষ কল্মষ বিরোধ বিদ্বেষ, হউক নির্মল, হউক নিঃশেষ –
চিত্তে হোক যত বিঘ্ন অপগত, নিত্য কল্যাণকাজে।
স্বর তরঙ্গিয়া গাও বিহঙ্গম, পূর্বপশ্চিম বন্ধুসঙ্গম
মৈত্রিবন্ধন পুণ্যমন্ত্র পবিত্র বিশ্বসমাজে।

Advertisements

2 thoughts on “শান্তিকামনা মাত্র

কেমন লাগল? লিখে ফেলুন!

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s